রবিবার, ২৩শে জুন, ২০২৪

সর্বশেষ

গোটা দেশকেই কারাগারে রূপান্তরিত করেছে নিশিরাতের সরকার- গোলাম আকবর খোন্দকার

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য, সাবেক রাষ্ট্রদূত ও সংসদ সদস্য এবং চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম আকবর খোন্দকার বলেন,
রাষ্ট্রপরিচালনায় সকল ক্ষেত্রে ব্যর্থ বর্তমান আওয়ামী অবৈধ সরকার এখন দিশেহারা হয়ে অমানবিকভাবে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের খেলায় মেতে উঠেছে। বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, মিথ্যা মামলা দায়ের এবং হত্যা, গুমসহ অব্যাহত গতিতে গ্রেপ্তার করে কারান্তরীণের মাধ্যমে গোটা দেশকেই কারাগারে রূপান্তরিত করেছে নিশিরাতের সরকার।

তিনি বলেন,চট্টগ্রাম আন্দোলন-সংগ্রামের পুণ্যভূমি। শহীদ জিয়া এখান থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। এখানেই তিনি শাহাদাতবরণ করেন। শহীদ জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য আমরা লড়াই করছি। যিনি দেশের দুঃসময়ে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এদেশের মানুষের মুক্তির জন্য, গণতন্ত্রের জন্য, অর্থনীতির মুক্তির জন্য তিনি লড়াই করেছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের দর্শনকে সামনে রেখে সৃষ্টিকর্তার উপর ও অবিচল আস্থা ও বিশ্বাস এবং সর্বস্তরের সামাজিক ও অর্থনৈতিক ন্যায় বিচারের প্রতিফলন ঘটানোর অঙ্গীকার নিয়ে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ৪৫ বছর পূর্বে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

বিএনপি এক দফার আন্দোলনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানের নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সহ সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।

তিনি আজ ৩০ আগষ্ট বুধবার বিকেলে বিএনপির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে গৃহীত সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচীর তৃতীয় দিনে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রদলের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।

নাসিমন ভবন চত্বরে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের সভাপতি হাসান মোহাম্মদ জসীম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বিএনপির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম, বিশেষ অতিথি হিসেবে কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল উদ্দিন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য সাথী উদয় কুসুম বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দিপ্তী, বিভাগীয় যুবদলের সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক জনাব এম এ হালিম, অধ্যাপক ইউনুস চৌধুরী, নুরুল আমিন, আলহাজ্ব সালাউদ্দিন, নুর মোহাম্মদ, নুরুল আমিন চেয়ারম্যান, ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন, কাজী সালাউদ্দীন উপস্থিত ছিলেন।

সভার প্রধান বক্তা বিএনপির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, বাংলাদেশে না শুধু সারা দুনিয়াতে তারেক রহমানের মতো এমন একজন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুসকিল হবে যার পিতা দেশের নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি ছিলেন এবং মা দেশের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। দুনিয়ার আর কোথায় এমন কেউ আছে কিনা আমার জানা নেই।এ সরকারের একমাত্র ভয় তারেক রহমান।
তিনি বলেন‘এখনও সময় আছে, জনগণের দাবি মেনে নিয়ে অবিলম্বে পদত্যাগ করে নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচন দিন। অন্যথায় আন্দোলনের মাধ্যমে আপনাদের পদত্যাগে বাধ্য করা হবে।’

সভার বিশেষ অতিথি বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল বলেন,সরকারের দুঃশাসন ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষ অবর্ণনীয় দুঃখ-কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। জনগণের দুঃখ-দুর্দশা লাঘবে সরকারের কোনো পদক্ষেপ নেই। তারা ব্যস্ত দুর্নীতি ও লুটপাটে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুরাদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে আবদুল আউয়াল চৌধুরী, সেলিম চেয়ারম্যান, অধ্যাপক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট এম এ তাহের, শহীদুল ইসলাম চৌধুরী, কুতুবউদ্দিন বাহার, আবু আহমেদ হাসনাত, সোলাইমান মঞ্জু, গাজী নিজাম, আলমগীর ঠাকুর, ইউসুপ নিজামী, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের সহ সভাপতি আমান উল্লাহ আমান, আবু সিদ্দিক বাল্লা, লোকমান হোসেন রাকিব, যুগ্ম সম্পাদক এস এম ইব্রাহিম, শওকত তালুকদার, মাজহারুল ইসলাম, নিজাম উদ্দিন, হারুনর রশীদ হান্নান, জানে আলম, শাকিল চৌধুরী, আওরঙ্গজেব সম্রাট, জি এম সাইফুল, নাজিম উদ্দিন আকবর, আবদুল কাদের, বাবলু বড়ুয়া, মোহাম্মদ নুরনবী, ফখরুল হাসান, ফজলুল করিম, নিঝুম খান, সেকান্দর সওদাগর, মোর্শেদ হাজারী, মো: কামাল, মুহাম্মদ সিরাজ, মো: জামাল, নাসির কমিশনার, মইনউল্লাহ উজ্জ্বল, মহিউদ্দিন চৌধুরী, মির্জা এমদাদ, আবসার হোসেন মিয়াজি, নুরুল কবির তালুকদার, মো: খোরশেদ, এস এম লোকমান,খালেদ হোসেন চৌধুরী রাসেল, ইসতিয়াক হোসেন চৌধুরী অভি,এম শাহজান শাহিল,মাহমুদুল হাসান দিলু,মো: শহিদ, মুহাম্মদ মহসিন, মনিরুল ইসলাম মাহি, ফারুক বিন মুছা, হেলাল উদ্দিন, সাহাবউদ্দিন রাজু,মাকসুদ চৌধুরী, জহির উদ্দিন বাবর, ইব্রাহিম বিজয়, মুহাম্মদ ফয়েজ
প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

আরও পড়ুন