শুক্রবার, ১২ই জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ

লালমনিরহাটে বিএনপির সঙ্গে সংঘর্ষ, শ্রমিক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

লালমনিরহাট সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগরে হরতালের সময় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় জাহাঙ্গীর হোসেন (৫০) নামে এক শ্রমিক লীগের এক নেতাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আওয়ামী লীগের আরও দুজন কর্মী। তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান জাহাঙ্গীর হোসেন। এর আগে বেলা ১১টায় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মধ্যে সংঘর্ষ চলাকালীন জাহাঙ্গীরসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী মারাত্মক আহত হন।

জাহাঙ্গীর হোসেন লালমনিরহাটের গোকুন্ডা ইউনিয়নের বেড়পাঙ্গা এলাকার আজিজার রহমানের ছেলে। তিনি সদর উপজেলার গোকুন্ডা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য ও সদর উপজেলার লোড-আনলোড শ্রমিক ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১১টার দিকে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের সমর্থনে বিএনপি মিছিল বের করে। একই সময়ে আওয়ামী লীগও শান্তি মিছিল শুরু করে। এক পর্যায়ে দুদলের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

এ সময় জাহাঙ্গীর হোসেনসহ বেশকয়েক জন লাঠি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মক আহত হন। পরে জাহাঙ্গীরসহ তিনজনকে আহত অবস্থায় রংপুর মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাহাঙ্গীর মারা যান। আওয়মী লীগের কর্মী রাজু ও বাবুকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া পিকেটাররা সেনামৈত্রী মার্কেট এলাকায় বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেন। এ সময় সাংবাদিকদের ভিডিও ধারণ করতে দেননি তারা। পরে পুলিশ এসে তাদেরকে সেখান থেকে সরিয়ে দেয়।

এদিকে বুড়িমারী-লালমনিরহাট মহাসড়কে সকালে কিছু বাস ও ট্রাক চলাচল করতে দেখা গেলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা বন্ধ হয়ে যায়। তবে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

লালমনিরহাট পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম তপন জানান, আওয়ামী লীগের শান্তি মিছিলে বিএনপির হামলায় তাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে জাহাঙ্গীর রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। আর যারা আহত আছেন তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি ওমর ফারুক জানান, রংপুর মেডিকেল কলেজে একজন মারা যাওয়ার খবর শুনেছি। তবে এ বিষয় থানায় কেউ অভিযোগ দেননি।

আরও পড়ুন