বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ

বুনো আর আমি ## শাহ সাবরিনা মোয়াজ্জেম

বুনো আর আমি
## শাহ সাবরিনা মোয়াজ্জেম

তালদিঘীর—বর্শীকরণ
এতিমাম সেতো জন্ম জমিদারির খেলায়
অষ্কক্রিয়া খেলে জীবন জুয়াড়ি!
অভিষ্যন্দ গিরিপ্রপাত কল্লোলে চামর
দোলায় সৃষ্টি-সুখের উল্লাসে সমুদ্র!
জীবন প্রপাতে—
কেউ কি ডাকে বুনো—!?
( চলো, তুমি আমি উলুবনে কিছুক্ষণ মুক্তো ছড়ায়)
বুনো,
কুয়োতলায় বর্ষার শৈবাল—
সোনালি পথে বাদলা দিনের তৈলচিত্র!
চিত্রিত আঁধারে কলালক্ষ্মীর পুজোর
এলোমেলো আয়োজন—!
আসছে বসন্তে—তুমি কি জেগে থাকবে
— কিছুক্ষণ!
অমীয়ক্ষণ ভুলে থাকা যায়না
বাদল বিলাসে—!
তবুও কর্পূর মেঘ নীলাম্বরী পড়ে!
আত্মীক নির্বাসনে হুইসেল বাজানো
রাজপথটা —বেনামে ধুলো উড়ায়!
চলো, শিশিরে চৌ-রাস্তায়
কাকভেজা ভিজি— আর্দশলিপির
— খেলাঘরে যেখানে আমাদের প্রথম পাঠ!
মূর্ত প্রসবের আতিথ্য—
মন ভেজানোর গল্পে গল্পে—
শরীরি ছন্দে ছন্দে—!
বুনো,
তুমি হয়তো ভাবছো
মুখাবয়বের বলিরেখা ডাকবে কি করে?
জানো, কখনো কখনো ঈষানে আঁকে ভৈরবী জলছবি—!
রমণীয় মোহন জীবনের উদ্ভাসিত
আলোয় কমনীয়— আদলের ছটা।
ঘন শাওয়ারের তীব্র ছবিটা
রক্ত গড়িয়ে পড়ে বিরামহীন
সফেদ বিস্ময়ের আয়োজনে—!
ঠিক শিরদাঁড়ায় হিম স্রোত —!
ধৃষ্টতা—আমার অপ্রেমে নয়।
আনমনে বিকিনি খুলি
বাথটাবে কিংবা
সুইমিংপুলেও নয়—
নগ্নের অবস্থান তুমি’য়ধারায়—!
বুনো,
তুমুল তোলো বাদ্যের খেলা
অবিনাশী প্রেমে—
অবিনাশী ক্রিয়ায়—
অধরা হস্তমৈথুনে—!
ভোগ পাথার এলোপাতাড়ি
ছায়ায় মোড়া বেষ্টনী
শতচ্ছিন্ন শবচ্ছেদে মুখ ডুবিয়ে
টেনে নাও দীর্ঘ শ্বাস—!
বুনো,
জীবনের কলকি এখানেই কিন্তু শেষ নয়
কাব্যঘোরে এখনো মেঘের নাচন
অস্ফুট সুরে বেজে ওঠে
দায়ভারের গতি—
প্রেম উস্মা জাগে—
কথিত কল্পিত প্রেমে—!
তবুও প্রেম—!
প্রেম নয় কি বুনো—?
অঞ্জলি দেবো শরীর —
যেখানে ঊর্বসীর দশভূজা দুর্গার বিসর্জনে!
অবেলায় শিশ্নের স্তাবক হবে তুমি—!

আরও পড়ুন