বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ

চট্টগ্রামে কন্টেনার টার্মিনাল, এলিভেটেড এঙেপ্রেসওয়ে সহ ১৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রাম বন্দরের পতেঙ্গা কন্টেনার টার্মিনাল (পিসিটি)চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন সহ ১৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করেন তিনি।
এ ছাড়াও চট্টগ্রামের যে সব মেগা প্রকল্প উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তরও স্থাপন করেন তার মধ্যে মেয়র মহিউদ্দীন চৌধুরী–সিডিএ ফ্লাইওভারসহ সিডিএর প্রকল্প রয়েছে ৩টি। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের আওতায় ১ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকায় নির্মিত ২৭টি অবকাঠামো রয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছেন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। এছাড়া স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ২৮ লাখ টাকায় মীরসরাই উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডে আমান উল্লাহ ভূঁইয়া কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ প্রকল্প ।
দেশের অর্থনীতির প্রাণ কেন্দ্র চট্টগ্রাম বন্দরের বহুল প্রতীক্ষিত পতেঙ্গা কন্টেইনার টার্মিনালটি (পিসিটি)প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করেন।২০১৫ সালের অক্টোবরে নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনালের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আট বছর পর পতেঙ্গা কন্টেইনার টার্মিনালের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করলো চটগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়াও চট্টগ্রাম বন্দরের আরেক মেগা প্রকল্প বে-টার্মিনালের মাস্টার প্ল্যানের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল, ওএসপি, এনইউপি, পিপিএম, পিএসসি,জাতীয় সংসদের হুইপ সামসুল আলম এমপি,আবদুল লতিফ এমপি,চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব ওমর ফারুক,সাময়িক বেসাময়িক ,চট্টগ্রাম বন্দরের উদ্ধতম কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
দেশের বাণিজ্যের চাহিদা মোকাবেলায় চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে পতেঙ্গা কন্টেনার টার্মিনাল নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। প্রকল্পটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয় ২০১৭ সালের ৮ সেপ্টেম্বর। নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে। বন্দর কর্তৃপক্ষ নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় এক হাজার ২৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে পিসিটি নির্মাণ করে। পিটিসির জেটির দৈর্ঘ্য ৫৮৪ মিটার। জেটি এলাকায় পানির গভীরতা সাড়ে ১১ মিটার হলেও ১০ থেকে সাড়ে ১০ মিটারের ড্রাফটের জাহাজ ভিড়ানো হবে। এই টার্মিনালে একসঙ্গে ১৯০ মিটার লম্বা ও ১০ বা সাড়ে ১০ মিটার ড্রাফটের ৩টি কন্টেনার জাহাজ এবং ২২০ মিটার দীর্ঘ ডলফিন জেটিতে ১টি ভোজ্যতেলবাহী জাহাজ ভেড়ানো যাবে। তবে ২১০ মিটার বা বেশি দীর্ঘ জাহাজ ২টির বেশি ভেড়ানো যাবে না। ৩২ একর জমিতে নির্মিত এ প্রকল্পে ব্যাকআপ ইয়ার্ড ১৬ একর। বঙ্গোপসাগরের মোহনা থেকে পিসিটির দূরত্ব মাত্র ৬ কিলোমিটার। কোনো বাঁক না থাকায় এখানে বড় জাহাজ ভিড়ানোর বিশাল এক সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। সৌদি আরবের রেড সি গেটওয়ে টার্মিনাল (আরএসজিটি) পিসিটি পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হবে।।আরএসজিটি এই টার্মিনালের প্রয়োজনীয় সব ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ করবে। ২২ বছর তারা টার্মিনাল ব্যবহার করবে। এরপর যে অবস্থায় থাকবে সেই অবস্থায় বন্দর কর্তৃপক্ষের নিকট হস্তান্তর করে চলে যাবে সৌদি আরবের রেড সি গেটওয়ে প্রতিষ্টানটি।
এ দিকে চট্টগ্রামের সবছেয়ে দীর্ঘতম এলিভেটেড এঙেপ্রেসওয়ে’ও উদ্বোধন করা হয়।এ ছাড়াও সিডিএ দুটি প্রকল্পের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।প্রকল্প দুটি হচ্ছে সিরাজউদ্দৌলা রোড থেকে শাহ আমানত ব্রিজ পর্যন্ত জানে আলম দোভাষ সড়ক এবং ঢাকা চট্টগ্রাম ট্র্যাংক রোড থেকে বায়েজিদ বোস্তামী রোড পর্যন্ত বঙ্গমাতা ফজিলতুন্নেসা মুজিব সড়ক (ফৌজদারহাট–বায়েজিদ লিংক রোড)।
পতেঙ্গায় সিডিএ আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্টানে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম. জহিরুল আলম দোভাষ সহ সিডিএ এর উদ্ধতম কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এ ছাড়াও ৪৭২ কোটি ২৩ লাখ টাকায় গণপূর্ত অধিদপ্তরের আগ্রাবাদস্থ সিজিএস কলোনিতে জরাজীর্ণ ১১টি ভবনের স্থলে ৯টি বহুতল আবাসিক ভবনে সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের জন্য ৬৮৪টি ফ্ল্যাট নির্মাণ ও চট্টগ্রাম শহরে পরিত্যক্ত বাড়িতে সরকারি আবাসিক ফ্ল্যাট ও ডরমিটরি ভবন নির্মাণ প্রকল্প।
গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) চার প্রকল্প এর মধ্যে রয়েছে ৩০১ কোটি ৭৭ লাখ টাকায় মহেশখালী জিরো পয়েন্ট (কালাদিয়ার চর) – সিটিএমএস (ধলঘাট পাড়া) গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প, ১ হাজার ২৪৮ কোটি ৭৬ লাখ টাকায় মহেশখালী–আনোয়ারা গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প, ৭২০ কোটি ৯৯ লাখ টাকায় আনোয়ারা–ফৌজদারহাট গ্যাস সঞ্চালন পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প এবং ২ হাজার ৪৭৯ কোটি টাকায় চট্টগ্রাম–ফেনী–বাখরাবাদ গ্যাস সঞ্চালন সমান্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

আরও পড়ুন