বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪

সর্বশেষ

কোনো ‘জানোয়ারদের’ সাথে আমরা সংলাপ করতে পারি না : তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াত হিংস্র জানোয়ারের চেয়েও হিংস্র হয়ে গেছে। আমরা কোনো জানোয়ারদের সাথে সংলাপ করতে পারি না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফিলিস্তিনে হত্যা ও ইসরায়েলি বাহিনীর অনুকরণে দেশে বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাসের প্রতিবাদে মানববন্ধনে এসব কথা বলেন তিনি। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তানি বাহিনীও এভাবে মানুষ পুড়িয়ে মারে নাই। এই বিএনপি-জামায়াত হিংস্র জানোয়ারের চেয়েও হিংস্র হয়ে গেছে। আমরা কোনো জানোয়ারদের সাথে সংলাপ করতে পারি না। যারা মানুষ পোড়ায় তাদের সাথে সংলাপ হতে পারে না। বিএনপি আজ রাজনৈতিক চরিত্র হারিয়েছে। সংলাপ হয় রাজনৈতিক দলের সাথে। যারা মানুষের ওপর পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে, যেই দল গাড়ি-ঘোড়া পোড়ালে প্রমোশন দেয় তারা কোনো রাজনৈতিক দল হতে পারে না। মানুষ পোড়ানো এই সন্ত্রাসী দলের সাথে কোনো সংলাপ হতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘লন্ডন থেকে ফোন করে করে নির্দেশ দেয় গাড়ি পোড়ালে পার্টির মধ্যে তাকে উচ্চ পর্যায়ে প্রমোশন দেওয়া হবে। এ ঘটনায় কয়েকজনকে ধরা হয়েছে। তারা বলেছে যে, ‘গাড়ি-ঘোড়া পোড়ালে তাদের দলের মধ্যে প্রমোশন দেওয়া হবে।’

এ সময় তিনি বলেন, ‘ওই ক্যাপিটল হিলে যারা হামলা চালিয়েছিল তাদের সাথে মার্কিন সরকার কি সংলাপে বসেছিল? তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আইনের আওতায় আনা হয়েছে। শাস্তির বিধান করা হয়েছে। আজকেও যারা বাংলাদেশে হামলা পরিচালনা করছে তাদেরও আইনের আওতায় আনার কাজ করছি আমরা জননিরাপত্তা বিধান করার জন্য।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে সম্ভবত সন্ধ্যার দিকে নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের তপশিল ঘোষণা করবে। নির্বাচন কমিশন তপশিল ঘোষণা করলে আমরা সেটিকে অভিনন্দন জানাই। কিন্তু তপশিল ঘোষণার সাথে সাথে এই সন্ত্রাসী বাহিনী দেশে নাশকতা সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাবে। সুতরাং এ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানাই।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যুদ্ধের সময় যেমন দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হয়, দুষ্কৃতকারীরা যাতে হামলা পরিচালনা করতে না পারে সেজন্য আজকে সেই ব্যবস্থা করতে হচ্ছে আমাদের। কারণ বিএনপি এখন দুষ্কৃতকারী হয়ে গেছে। বিএনপি এখন দেশের শত্রুতে পরিণত হয়ে গেছে। কোনো দেশ যখন বহিঃশত্রু দ্বারা আক্রান্ত হয় তখন তাদের বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হয়। আজকে আমাদের সেভাবেই নিরাপত্তা দিতে হচ্ছে। অর্থাৎ তারা (বিএনপি) দেশের শত্রুতে রূপান্তরিত হয়েছে। দেশের শত্রুদের সাথে কোনো সংলাপ হতে পারে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অবশ্যই আলাপ-আলোচনায় বিশ্বাসী। কিন্তু যারা চোর ডাকাতের চেয়েও জঘন্য, হায়েনার চেয়েও হিংস্র তাদের সাথে তো সংলাপ হতে পারে না। তবে অবশ্যই আমরা আলাপ-আলোচনা করে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।’

আরও পড়ুন