সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

সর্বশেষ

হাসপাতালে হামলা গাজাবাসীর মনোবল ভাঙার চেষ্টা: এরদোগান

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা ভূখণ্ডে হাসপাতালে বোমাবর্ষণ করে গাজাবাসীর মনোবল ভাঙার চেষ্টা করছে ইসরাইল। এমন মন্তব্যই করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।

এ ছাড়া গাজায় ইসরাইলি হামলাকে ‘বর্বরতা, দস্যুতা এবং রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস’ বলেও অভিহিত করেছেন তিনি। তার অভিযোগ, হামাসের সঙ্গে যুদ্ধের নামে শিশু, নারী ও বয়স্কদের বিরুদ্ধে আধুনিক সব অস্ত্র ব্যবহার করছে ইসরাইল। খবর এএফপির।

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা ভূখণ্ডে অবিরাম হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। এ হামলা থেকে বাদ যাচ্ছে না গাজার স্কুল, মসজিদ— এমনকি হাসপাতালের মতো স্থাপনাও। এ পরিস্থিতিতে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডের হাসপাতালে বারবার ইচ্ছাকৃত আক্রমণের কথা উল্লেখ করে সোমবার এরদোগান বলেছেন, হাসপাতালগুলোতে ইচ্ছাকৃতভাবে বোমাবর্ষণ করে গাজার বাসিন্দাদের মনোবল বা দৃঢ়তা ভাঙার চেষ্টা করছে ইসরাইল।

এদিন রাজধানী আঙ্কারায় মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর এরদোগান বলেন, ইসরাইল ও তার সমর্থকদের যারা শিশু, নারী ও বয়স্কদের বিরুদ্ধে আধুনিক যুদ্ধের সব হাতিয়ার ব্যবহার করছে, তাদের মানবতার বিবেকের সামনে বিচার করা হবে। গত ৭ অক্টোবর গাজায় ইসরাইলের আক্রমণের শুরু থেকে অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডটি মধ্যযুগীয় ক্রুসেড এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মতো নৃশংসতা ও নিষ্ঠুরতা দেখে চলেছে। তুরস্কই হলো ‘একমাত্র দেশ’, যাকে ইসরাইল ইহুদিবিরোধী বলে আখ্যা দিতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, তুরস্কের অতীত সময়েও আপনি এমন লজ্জার দাগ দেখতে পাবেন না। গাজায় যা ঘটছে তাতে যদি আমরা প্রতিক্রিয়া না দেখাই, তা হলে আমরা আগামীকাল ধর্মান্ধ দখলদারকে আমাদের নিজেদের ভূমিতে পৌঁছাতে বাধা দিতে পারব না। তাই বলকান থেকে ককেশাস, কৃষ্ণসাগর থেকে ভূমধ্যসাগরের পূর্ব উপকূল পর্যন্ত আমাদের চারপাশে ঘটতে থাকা যে কোনো ঘটনা আমাদের জন্য সরাসরি উদ্বেগের বিষয়।

আরও পড়ুন