শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ

সিইসির সাক্ষাৎ চেয়ে ইইউ রাষ্ট্রদূতের চিঠি

সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের সঙ্গে সাক্ষাতের আগ্রহ প্রকাশ করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। আগামী ২৭ নভেম্বর বৈঠকের সময় চেয়ে ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশনে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি।

এদিকে নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য পাঁচজন বিশেষজ্ঞ পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। তাঁরা বাংলাদেশে ছয় থেকে আট সপ্তাহ অবস্থান করবেন এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সহিংস ঘটনার মূল্যায়ন করবেন বলে নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

ইসির সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বুধবার ই-মেইলের মাধ্যমে ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি সিইসির কাছে বৈঠকের সময় চেয়ে মেইল করেন। ই-মেইলে হোয়াইটলি লিখেছেন-‘সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে ইতোপূর্বে মতবিনিময় করায় আপনাকে ধন্যবাদ। নির্বাচন কমিশনের বর্তমান কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে আরও বিস্তারিত জানতে আপনার দপ্তরে একটি যৌথ সভায় অংশ নিতে সুযোগ চাই। আগামী ২৭ নভেম্বর বিকেল ৩টায় বৈঠকের জন্য আপনার সময় হবে কি? মতবিনিময়ের জন্য আপনার সম্মতির জন্য আমি উন্মুখ হয়ে আছি।’

ইসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চার্লস হোয়াইটলির চিঠি নথিতে উত্থাপন করা হয়েছে। তবে এখনও কমিশন বা সিইসি তাদের কোনো সময় দেননি। বেশিরভাগ কমিশনার এখন ঢাকার বাইরে নির্বাচনের মাঠ পর্যবেক্ষণে বিভিন্ন জেলায় অবস্থান করছেন। ফলে সাক্ষাতটি ২৭ নভেম্বর নাও হতে পারে। এর আগে ইইউ এ পর্যন্ত যতবার সময় চেয়েছে, তাদের দেওয়া হয়েছে। এবারও হয়তো পাবে। এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে জানিয়েছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চার সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ টিম পাঠাবেন তাঁরা।

আসছেন ৫ মার্কিন বিশেষজ্ঞ

এদিকে আসন্ন নির্বাচন পর্যবেক্ষণে পাঁচজন বিশেষজ্ঞের একটি দল পাঠানোর বিষয়টি উল্লেখ করে যুক্তরাষ্ট্রের দুই গবেষণা প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনস্টিটিউট (এনডিআই) এবং ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) গত সোমবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ে চিঠি পাঠিয়েছে।

ইসিতে পাঠানো চিঠিতে এনডিআই ও আইআরআই জানিয়েছে, বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদে চারজন বিশেষজ্ঞ এবং একজন বিশেষজ্ঞ সমন্বয়কারী পাঠানো হবে। তারা বাংলাদেশে ছয় থেকে আট সপ্তাহ কাজ করবেন। তাঁরা নির্বাচনের সপ্তাহ দুয়েক আগে বাংলাদেশে পৌঁছাবেন। বিশেষজ্ঞ মিশনের কাজ হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহিংসতার জন্য কারা দায়ী এবং এর প্রভাব মূল্যায়ন করা।

এই বিশেষজ্ঞরা নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সহিংসতার ঘটনা মূল্যায়ন করবেন। বিশেষ করে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সহিংসতা, কোনো রাজনৈতিক দলের অন্তর্দলীয় কোন্দলের কারণে সহিংসতা, নারী ও সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্য করে সহিংসতা, অনলাইনে হয়রানি ও হুমকি ইত্যাদি বিষয় তাঁরা খতিয়ে দেখবেন। এসব পরিস্থিতিতে সরকারের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ভূমিকাও মূল্যায়ন করবেন তাঁরা।

এনডিআইয়ের এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় কর্মসূচির পরিচালক জেমি স্পাইকারম্যান এবং আইআরআইয়ের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক আঞ্চলিক পরিচালক স্টিফেন চিমারের যৌথ স্বাক্ষরে চিঠিটি পাঠানো হয়েছে। তাতে বলা হয়, বিশেষজ্ঞ মিশনের কাজ হবে সংসদ নির্বাচনে সহিংসতার জন্য কারা দায়ী এবং এর প্রভাব মূল্যায়ন করা। ভবিষ্যতে নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা কমাতে ওই মিশন প্রয়োজনীয় সুপারিশ করবে। এনডিআই ও আইআরআইয়ের বিশেষজ্ঞরা তাঁদের মূল্যায়ন জনসমক্ষে প্রকাশের পাশাপাশি ইসিতে প্রতিবেদন জমা দেবেন।

আরও পড়ুন