সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

সর্বশেষ

মধ্যপ্রাচ্যে প্রেক্ষাগৃহে নিষিদ্ধ হৃতিক-দীপিকার সিনেমা ‘ফাইটার’

আপাতত বছরের প্রথম বড় বলিউড রিলিজ ‘ফাইটার’ সিনেমার অপেক্ষায় মুখিয়ে আছে দর্শকেরা। দীপিকা পাড়ুকোন ও হৃতিক রোশনের সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে আগামী ২৫ জানুয়ারি। তবে সিনেমাটি নিয়ে খারাপ খবর এসেছে গতকাল (মঙ্গলবার)। বিশেষ করে গালফ দেশগুলোতে হৃতিক আর দীপিকার ভক্তদের কাছে বয়ে আনবে দুঃসংবাদ।

বক্স অফিস বিশেষজ্ঞ এবং প্রযোজক গিরিশ জোহর জানিয়েছেন, “বিপত্তি। ফাইটার আনুষ্ঠানিকভাবে থিয়েটারে মুক্তির জন্য মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চল জুড়ে নিষিদ্ধ হয়েছে। শুধু সংযুক্ত আরব আমিরাতে পিজি১৫ ক্যাটাগরিতে ছবিটি মুক্তি দেবে!”

তবে কেন এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে তা এখনও পরিষ্কার হয়নি। আপাতত জানা গিয়েছে, ফাইটার গালফ কান্ট্রিগুলো থেকে সবুজ সংকেত পেতে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে আটকে মুক্তি।

ফাইটার সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন সিদ্ধার্থ আনন্দ। হৃতিক-দীপিকা ছাড়াও এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন অনিল কাপুর, করণ সিং গ্রোভার এবং অক্ষয় ওবেরয়।

সিনেমাটি পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের বালাকোট শহরের আশেপাশে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী দ্বারা করা বালাকোট বিমান হামলাকে ঘিরে তৈরি করা হয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মীরে সেনা কনভয়ের উপর হওয়া সন্ত্রাসী হামলার প্রতিশোধ নিতে সন্ত্রাসী সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের (জেএম) বৃহত্তম শিবিরের বিরুদ্ধে বিমান হামলা করা হয়েছিল ভারতের তরফে। সেই সন্ত্রাসী হামলায় প্রায় ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ান প্রাণ হারিয়েছিল।

২০০৮ সালের ‘বাচনা অ্যায় হাসিনো’ ও ২০২৩ সালের ব্লকবাস্টার ‘পাঠান’-এর পর সিদ্ধার্থ আনন্দের সঙ্গে দীপিকার তৃতীয় সিনেমা এটি। হৃতিক রোশনের সঙ্গেও সিদ্ধার্থ আনন্দের এটি তৃতীয় সিনেমাও। তাদের প্রথম সিনেমা ‘ব্যাং ব্যাং’, ১৬০ কোটি রুপি দিয়ে তৈরি হয়েছিল এবং বিশ্বব্যাপী ৩৪০ কোটি আয় করেছিল। তাদের দ্বিতীয় সিনেমা ‘ওয়ার’ ১৫০ কোটি রুপি নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল। এতে ছিলেন টাইগার শ্রফও। সেই সিনেমা আয় করে ৪৭১ কোটি।

‘ফাইটার’-এ স্কোয়াড্রন লিডার শমসের পাঠানিয়া ওরফে প্যাটির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন হৃতিক রোশন। স্কোয়াড্রন লিডার মিনাল রাঠোর ওরফে মিন্নির ভূমিকায় দেখা যাবে দীপিকা পাড়ুকোনকে। অনিল কাপুর গ্রুপ ক্যাপ্টেন রাকেশ জয় সিং ওরফে রকির ভূমিকায়।

ইতিমধ্যেই পাকিস্তানের একাধিক তারকা প্রতিবাদ করেছে ফাইটার সিনেমাটির। এদের মধ্যে আছেন হানিয়া আমির, আদনান সিদ্দিকি-রা। এমনকি দেশের মধ্যেও কেউ কেউ এটিকে ‘বিজেপি-র ভোট প্রচারের হাতিয়ার’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।

আরও পড়ুন