শুক্রবার, ১২ই জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ

নুরের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার আবেদন

রাষ্ট্র, সরকার ও ধর্মবিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে গণঅধিকার পরিষদের সদস্যসচিব এবং ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করেছেন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন।

শুক্রবার (০৭ জুলাই) রাজধানীর শাহবাগ থানায় তিনি এ মামলার আবেদন করেন।

মামলার আবেদনে বলা হয়, নুরুল হক নুর হজ করার কথা বলে বিদেশ সফরে গিয়ে সংযুক্ত অরব আমিরাতের (দুবাই) অস্বীকৃত ইসরায়েল রাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের এজেন্ট মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে বৈঠক করে বাংলাদেশের নির্বাচিত সরকার উৎখাতের দেশবিরোধী রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।
মোসাদ এজেন্ট মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে নুরুল হক নুরের ছবি ও তার স্বীকারোক্তিমূলক কথোপকথন ইতোমধ্যেই ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু।

আল্লার পবিত্র কাবাঘর তাওয়াফের নাম করে বিদেশে গিয়ে ইয়াহুদি চক্রের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নুরুল হক নুর প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্র, সরকার ও পবিত্র ধর্ম ইসলামের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছে। ইসলামের খোলসে মাথা নেড়িয়ে টুপি পরে জুয়িশ-জায়নবাদী প্রজেক্ট বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে এবং সরকারের বিভিন্ন ব্যক্তিকে ফেসবুক লাইভে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে।

আবেদনে আরও বলা হয়, সম্প্রতি গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়ার বক্তব্যে ইসরায়েলের মোসাদের সঙ্গে নুরুল হক নুরের যোগাযোগ ও আর্থিক লেনদেনের বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে। সম্প্রতি ডিবিসি ও সময় টিভিতে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, পার্বত্য চট্টগ্রামের বিদ্রোহী জঙ্গিগোষ্ঠী কুকি চীনের সঙ্গে নুরুল হক নুরের যোগাযোগ রয়েছে যা দেশের প্রচলিত আইন পরিপন্থি এবং রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ববিরোধী জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে নুরুল হক নুরের যোগাযোগ প্রমাণ করে নুর বিদেশি শক্তির নির্দেশে জনগণের আবেগকে ব্যবহার করে রাজনীতির নামে প্রকৃতপক্ষে দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা ও সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চায়। দেশের অভ্যন্তরে কুকি চীনসহ কতিপয় জঙ্গিগোষ্ঠীকে ব্যবহারের মাধ্যমে নুরুল হক নুর রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

বাংলাদেশ রাষ্ট্র নির্যাতিত-নিপীড়িত ফিলিস্তিনিদের অধিকারের পক্ষে সবসময় থাকলেও ইসরায়েল ও মোসাদের সহযোগিতায় নুরুল হক নুর ও তার রাজনৈতিক দল গণঅধিকার পরিষদ সাধারণ নেতাকর্মীদের উস্কে দিয়ে রাষ্ট্রের মধ্যে ঘৃণা, বিদ্বেষ-বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আইনবলে প্রতিষ্ঠিত বৈধ সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বিধায় এই আসামি নুরুল হক নুর রাষ্ট্রদ্রোহিতামূলক অপরাধ সংঘটিত করেছে। এসব কর্মকাণ্ড রাষ্ট্রদ্রোহের শামিল। তাই তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ১২৪ (ক), ১২০ (খ) ও ৫০৬ ধারায় মামলা নথিভুক্ত করতে আবেদন করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ও গণমাধ্যম সমন্বয়ক আবু হানিফ  বলেন, গত কয়েকদিন ধরে সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা বিভিন্নভাবে দলের ভেতরের কিছু লোককে দিয়ে গণঅধিকার পরিষদকে ভাঙার চেষ্টা করছে। একই সময়ে সরকারও বিভিন্নভাবে প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে। রাজধানীর শাহবাগ থানায় যে মামলার আবেদন করা হয়েছে তা চলমান ষড়যন্ত্রেরই অংশ। কারণ, সরকার চায় এসব মামলা, ভয়-ভীতি দেখিয়ে চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলন থেকে গণঅধিকার পরিষদকে বিরত রাখতে। তবে সরকারের এই ইচ্ছা পূরণ হবে না। গণঅধিকার পরিষদ অতীতের মতো সামনে সরকারবিরোধী আন্দোলনে আরও সক্রিয় ও কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে।

তিনি আরও বলেন, গণঅধিকার পরিষদের অভ্যন্তরীণ যে সংকট আর সদস্য সচিব নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে মামলার এ আবেদন একই সূত্রে গাঁথা।শাহবাগ থানার ওসি নূর মোহাম্মদ বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। আমরা বিষয়টি দেখছি।

আরও পড়ুন